• শিরোনাম

    সীতাকুণ্ডে দুই ‘জঙ্গি আস্তানায়’ অভিযান, বিস্ফোরণে পুলিশ আহত

    আজকের অগ্রবাণী ডেস্ক: | বুধবার, ১৫ মার্চ ২০১৭

    সীতাকুণ্ডে দুই ‘জঙ্গি আস্তানায়’ অভিযান, বিস্ফোরণে পুলিশ আহত

    চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড পৌর শহরে সন্দেহভাজন জঙ্গিদের একটি আস্তানা থেকে অস্ত্র ও বিস্ফোরকসহ এক দম্পতিকে গ্রেপ্তার করার পর পাশের ওয়ার্ডে আরেকটি বাড়ি ঘিরে অভিযান চালাচ্ছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী।

    ওই ভবন থেকে ছোড়া গ্রেনেড বিস্ফোরণে ইতোমধ্যে এক পুলিশ কর্মকর্তা আহত হয়েছেন। অভিযানে অংশ নিতে সেখানে উপস্থিত হয়েছেন র‌্যাব ও সোয়াট সদস্যরাও।

    বাড়িওয়ালার কাছ থেকে খবর পেয়ে বুধবার বেলা ৩টা থেকে সাড়ে ৩টার মধ্যে পৌর এলাকার নামার বাজার ওয়ার্ডের আমিরাবাদ এলাকায় দোতলা সাধন কুটিরের নিচতলায় অভিযান পুলিশের অভিযান শুরু হয়।

    সেখানে অস্ত্র ও বিস্ফোরকসহ এক জঙ্গি দম্পতিকে গ্রেপ্তারের পর তাদের দেওয়া তথ্যে পাশের প্রেমতলা ওয়ার্ডের চৌধুরী পাড়ার ‘ছায়ানীড়’ নামের আরেকটি দোতলা বাড়ি ঘিরে অভিযান চালানোর কথা জানান চট্টগ্রাম জেলা পুলিশের অতিরিক্ত সুপার (উত্তর) মসিউদ্দোল্লাহ রেজা।

    তিনি বলেন, “নামার বাজারের ওই বাসায় অস্ত্র, বিস্ফোরক ও সুইসাইড ভেস্ট পাওয়া গেছে। পুলিশের বোমা নিষ্ক্রিয়করণ ইউনিট সেখানে কাজ করছে।”

    প্রেমতলার বাড়িতে অভিযানে গিয়ে গ্রেনেড হামলায় সীতাকুণ্ড থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোজাম্মেল হক আহত হয়েছেন জানিয়ে মসিউদ্দোল্লাহ রেজা বলেন, “ভেতরে থাকা জঙ্গিদের গ্রেপ্তারে সেখানে অভিযান চলছে।”

    চট্টগ্রামে জঙ্গি দমনে বেশ কিছুদিন পুলিশের তেমন কোনো তৎপরতা দেখা না গেলেও সম্প্রতি কুমিল্লায় একটি বাসে তল্লাশির সময় পুলিশের দিকে বোমা ছোড়ার ঘটনার পর নড়েচড়ে বসে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী।

    গত ৭ মার্চ কুমিল্লায় দুই জঙ্গিকে আটক করার পর তাদের একজনকে নিয়ে ওই রাতেই মিরসরাইয়ের একটি বাড়িতে অভিযান চালায় পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট। সেখান থেকে উদ্ধার করা হয় ২৯টি হাতবোমা, নয়টি চাপাতি, ২৮০ প্যাকেট বিয়ারিংয়ের বল এবং ৪০টি বিস্ফোরক জেল।

    এরপর চট্টগ্রাম নগরী ও জেলার বিভিন্ন স্থানে ভাড়াটিয়াদের তথ্য সংগ্রহের পাশাপাশি এলাকায় এলাকায় ‘ব্লক রেইড’ দেওয়ার নির্দেশনা দেওয়ার কথা জানান চট্টগ্রামের পুলিশ সুপার নূরে আলম মিনা।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত